The Role of Political Islam in Egyptian Democratic Experience

Khan Sarifuzzaman

University of Dhaka, Bangladesh

pdf download  Download Full-Text Pdf

Keywords: Political Islam, Islamists, Political Transition, Democratic Transition, Egyptian politics

Abstract

The aim of the study was to understand the role of political Islamists in Egyptian democratic experience by the two research questions. Islamists’ Ideological self-contradiction and conflicting ideals with democracy turned the democratic transition into failure in Egypt. They have accepted election to attain the power but not the democratic values and culture as a whole. Military, the most significant internal actor, with their authoritarian state apparatus, also played an imperative role to make the political transition unsuccessful. In this qualitative study, documents are analyzed in the case of Egyptian political change.

Khan Sarifuzzaman and Sima Islam

The role of madrasa education from the Muslim ruling time, during independence movement of India-Pakistan and in independent Bangladesh is very much noteworthy till today in our political, social, economic and cultural aspects. Ignoring a statement of Rashed Khan Menon, Prime Minister Sheikh Hasina commented on March 11 that madrasa education is not a ‘factory of militancy’ and some of the madrasa students can be used by others.

She said this during her valedictory speech on the thanksgiving motion on the President’s speech in the maiden session of the 11th parliament. Pointing to Rashed Khan Menon’s remarks, Prime Minister said, “A few people say that madrasa is a factory of militancy, I don’t agree with this stance. Who is involved in Holi Artisan attacks? They are not educated from any madrasa. Every one of them belonged to a highly educated family and they are educated from English medium school and private university”.

On March 3 speech of Rashed Khan Menon, president of Bangladesh’s Workers Party and former Minister, compared Qwami madrasa education as ‘Poison Tree’ which has an aim to establish theocracy (in Bengali ‘Mollatontro’). He criticized the recognition of the Qwami madrasa certificate as well. In reaction, Hefazat-e-Islam chief Allama Shah Ahamd Shafi has asked Rashed Khan Menon MP to apologize publicly for making derogatory remarks about Qawmi madrasas in parliament. In his statement, Hefazat Ameer said, “Qawmi madrasas have set a unique example of building a society free from corruption and drugs by providing education without any assistance from the state. It is a rare incident in the history�.Menon has demonstrated his anti-Islamic attitude by giving such remarks about qawmi madarasas.

In post 9/11 era, militancy and Islam have become a focal point in international arena and in the Muslim world (Rahman, 2016). After the series bomb attack throughout the country in 2005 it has become a matter of concern to the security officials, politicians, administrators and academicians. There are different causes of producing militancy are explored by researchers and security forces. Soci-economic condition, family background and faulty education system or curriculums are prominent of those (Dhaka Tribune, 21 January, 2018). Both national and international researchers have explored the relationship between Islamic education system and militancy in Bangladesh.

A few politicians, academicians as well as national and international media often argue that the Madrasa system is a breeding ground of Islamic militants. The most growing up (with around 15 lakh students) and the most influential Madrasa is Qwami madrasas on which our government has very less control though recently government has recognized its highest degree Dawra Hadis as equivalent to master degree on Arabic or Islamic Studies (Daily Star, August 14, 2018).

According to the report prepared by Bangladesh Bureau of Educational Information and Statistics (BANBEIS) in 2015 a total of 1.4 million students have been studying in 13,902 Qawmi madrasas across the country. Of them, the highest 4,599 madrasas are located in Dhaka division while the lowest 1,040 are in Barisal, says the report. According to BANBEIS report, off all the Qawmi madrasas, 12,693 are for men while 1,209 belong to women. As many as 10,58,636 male and 3,39,616 female students have been studying while 73,731 teachers teach in these institutes ( Prothom Alo, May 24, 2015). Hence, this unfocused people have a great role in our socio-political arena.

Some ex-ministers, MPs, and high ranking officials, security forces and academicians have been delivering contradictory comments and information for last 10 years about the role of Qwami Madrasa about creating militancy. In the same line with Menon, Ex-Information Minister Hasanul Haq Inu on July 7, 2016 said, two of the seven militants involved in the café attack that left 20 people dead were students of madrasas. In an interview with India’s influential daily The Hindu, Inu said, most of the militants involved in recent attacks in Bangladesh are from madrasas, not from elite schools.

Contrary to popular perception, people with a background in general education are more likely to become involved in militancy than those from madrasas, law enforcement officials claim (Mahmud & Shaon, 2018). Militant leaders such as Shaykh Abdur Rahman, Siddikul Islam alias Bangla Bhai, Ansarullah Bangla Team’s Jasimuddin Rahmani, among others, are from madrasas. Militant recruiters are usually from madrasa background. Police Bureau of Investigation chief Deputy Inspector General Banaz Kumar Majumder says, the environment in which a person grew up is important. “People from conservative social background are easy prey for the militant recruiters,” he noted (Dhaka Tribune, 21 January, 2018).

The picture has become clearer after police interrogated arrested militants, spoke with their family members, and checked their family income and educational backgrounds. Sources at Police Head quarters said that the environment, friends, and acquaintances influence the youths more than any other thing to turn to extremism. And education – be it general, English medium or madrasa – plays a minor role. Of the arrested militants, nearly 35% are from general education background, 30% madrasa dropouts (how many are only from Qwami madrasa is a question), 20% from English medium and 10% are illiterate, counter-terrorism officials say (Dhaka Tribune, 21 January, 2018). According to DMP Counter-Terrorism chief Monirul Islam, English medium schools and madrasa where the practice of Bengali culture is least, are most prone to radicalization (Daily Star, 1 September, 2016). The issue of English medium school is added after the July 1 Dhaka attack (Holy Artisan attack).

Education minister Nurul Islam Nahid said several times in different programs, “Madrasas never creates militants” (Bangla tribune, 23 March 2016). He further clarified that till today we don’t have this types of any information that madrasas are breeding grounds for militancy rather militants are found in the institutions (University and English medium Schools) where the rich people send their children (Parsatoday.com). Home Minister Asaduzzaman Khan Kamal on November 26, 2017 said that university and college students become militants while those have no such recent record from Madrasa. The countrymen are religiously devoted, but they are not fanatic.

On January 27, 2018 the UNB reports, speakers at a discussion stressed the need for modernizing madrasa education, mainly the Qawmi one, with its integration into the mainstream education as 75 percent students of such educational institutions remain jobless for lack of expertise. “Around 75 percent madrasa students now remain unemployed in different forms as they have no opportunity to engage in jobs based on their education and skills,” said Professor Abul Barkat of Dhaka University. Barkat and others wrote the research based book titled ‘Political Economy of Madrasa Education in Bangladesh’ based on their thorough research findings. He said, “Madrasas have failed to provide quality, non-communal and realistic education and produce skilled human resources.” He claimed in his book, “There is absolutely nothing in madrasa curriculum that can be deemed as promoting or encouraging militancy, not to mention terrorism” (pg- 265).

Professor Ali Riaz and Barkat is the most prominent and have the most comprehensive research on madrasa education system. None of them think that madrasa or Qwami madrasa is the breeding house of militancy. Professor Ali Riaz (2019) has written in a comment reviewing a writing on madrasa education, “the overall point is that a different approach to understanding madrassah is warranted rather than trying to find a non-existent link between militancy and madrassahs.”

According to Riaz, Islamist militancy and terrorism is a complex and multidimensional problem for Bangladesh since no single explanation can be applied to understand the roots of Islamist militancy and terrorism there. Professor Ali Riaz conducted a study by 2008 on Islamic militancy in Bangladesh which was published as two books named “Islamist Militancy in Bangladesh: A Complex Web” as well as “Faithful Education”. It is one of the most important academic studies on the growing Islamist militancy in Bangladesh. Riaz (2008) views Islamist militancy as caused by the complex web of domestic, regional and international events and dynamics in Bangladesh.

Riaz (2008) argues that Islamist militancy is the result of both errors of omission (the state, politicians and the civil society failed to do things that could have stemmed the rise of militancy) and errors of commission (the state, politicians, and the civil society did things that worsened the situation). His study showed the experience of Afghan war by the ‘Volunteer Crops’ in 1984 is the main cause of triggering the militancy in Bangladesh but not the ideology of Madrasa education which is found also in the research of professor Barkat.

According to the majority of the experts, the madrassa style education system has been in vogue for thousands of years in the Indian Subcontinent, and terrorism or militancy did not appear until the 2000’s. Quamruzzaman (2010) refuted the allegation against madrasas and pointed out that the major causes of radicalization are unregulated money flow, lack of freedom, democracy and political space, poor governance, and the politicization of Islam. The traditional madrasa curriculum focuses on religious education, and does not include modern subjects like science, maths, etc. The labor market finds that madrasa students lack knowledge, skills and competence compared to non-madrasa students. As, the Qwami madrasa education is not integrated to the mainstream education system, thousands of these are beyond the state regulation for the syllabus, pedagogy, and teacher recruitment.

The participation in militancy by the students sometimes may be part of local and international political trap. Some local and international media sometimes exaggerate the engagement of the madrasa students in militant activities whereas most of the terrorist and murderous activities are accomplished by other secular political parties. Most of whom are educated from secular or national educational institutes but Madrasa or Qwami Madrasa is blamed without proper study. Above references proved that there are different political, social, economic and geo-strategic causes behind the rise of militancy.

Accordingly, madrasa or Qwami madrasa do not bear the sole agency of the birth of militancy. Moreover, with a partial perception of some intellectuals and media propagate same type of incidence in indifferent brands. Such as, if an Islamist or Islam related any organization accomplish any violence then they brand it as militancy but whenever the same violence is done by any member or organization having secular ideal, then it will be called clash, fight, violence or political violence.

Actually, Menon or Inu blame religious education for their materialistic socialist ideological thought because Marx (1843) referred to religion as “the opium of the people’, something that promised illusory happiness by disguising the realities of the real world”. Hence, to call madrasa or Qwami madrasa ‘poison tree’ or ‘breeding house of militancy’ is the part of their ideological political campaign and fully a political comment not a research or security study based comment which has empty factual basis. Prime Minister Sheikh Hasina’s comment and initiatives about Qwami Madrasa are very timely and significant. In her march 11 speech she said, “We cannot boycott madrasa because it is also part of this society. We cannot keep any one out of the society�.the students of madrasa are also sons of this soil; we cannot throw them away. We are trying to correct the curriculum and standardize the education system to create employment for them. Keeping this idea in plan we have recognized Dawra Hadis” (Prothom Alo and Jugantor, march 11, 2019).

Though prime minister’s comment is also political comment but it supports the studies and researches. Moreover, it includes plans and activities to form an inclusive society. Only palatable debate will not solve the problems rather than to create working field for this ethically enriched huge manpower is more significant. Arranging short and long term vocational training they can be utilized for our national development inside of the border and outside especially in Middle Eastern countries as they are good in Arabic, Farsi and Urdu language.

First author is a Ph. D. researcher on madrasa education in Dhaka University. He can be reached at shoheldu412@gmail.com. Second author is an assistant professor of Graphics Design Department of Dhaka University.

 

খান শরীফুজ্জামান

দীর্ঘদিনের স্থবির রাজনৈতিক সংস্কৃতিতে আরবে বসন্তের হাওয়া বইতে শুরু করেছিল। কিন্তু তা যেন গ্রীষ্মের খরতাপে মলিন হয়ে উঠছে। তিউনিসিয়া, মিসরের মানুষের ভাগ্যাকাশের কালোমেঘ কেটে এখনো পূর্ণিমার আলো ছড়ায়নি। আরব বসন্তের সুতিকাগার তিউনিসিয়ার মানুষ রাজধানী তিউনিসসহ সিলিয়ানা প্রদেশে ডিসেম্বরের প্রথম থেকে বেকারত্ব, দরিদ্রতা ও সরকার পতনের ডাক দিয়ে মডারেট ইসলামী সরকারের বিরুদ্ধে সংগ্রাম করে চলেছে। তিউনিসিয়ার সবচেয়ে বড় বামপন্থি শ্রমিক ইউনিয়ন তিউনিসিয়ার জেনারেল লেবার ইউনিয়ন (UGTT) তাদের শান্তিপূর্ণ অধিকার আদায়ের আন্দোলনে পুলিশ ও ক্ষমতাসীন আন নাদাহ পার্টির বর্বর হামলার বিরুদ্ধে ১৩ ডিসেম্বর, ২০১২ সারাদেশে স্ট্রাইকের আহ্বান করে। তারা শ্লোগান দেয়, “বিদেশিদের আশীর্বাদপুষ্ট সরকার ক্ষমতা ছাড়”, “উপনিবেশবাদীদের সরকার, তোমরা তিউনিসিয়াকে বিক্রি করে দিয়েছ”। আন্দোলনের মুখে সিলিয়ানা প্রদেশের গভর্নরকে সরকার দায়িত্ব হতে অব্যাহতি দিতে বাধ্য হয়। আর এ স্ট্রাইকের আহ্বান স্মরণীয় এই ডিসেম্বরের মাঝে। ২০১০ সালের ১৭ ডিসেম্বর সিদি বাউজিদ শহরে মোহাম্মদ বু আজিজি নামের এক যুবককে পুলিশ রাস্তায় ফল বিক্রি করতে না দেয়ার প্রতিবাদে তিনি নিজ শরীরে আগুন লাগিয়ে আত্মাহুতি দেন। তার এই আত্মাহুতির ঘটনা সমগ্র তিউনিসিয়ায় বেন আলী বিরোধী বিপ্লবের বীজ বপন করে। শেষ পর্যন্ত পতন হয় বেন আলীর।

দেশটির অন্তর্বর্তী প্রেসিডেন্ট মুনসেফ মারজুকি সম্প্রতি শ্রমিক-কর্মচারীসহ সবার প্রতি আহ্বান জানান অন্তত ছয় মাসের জন্য ধর্মঘট বা আন্দোলন না করার জন্য। এছাড়া অন্তর্বর্তী প্রধানমন্ত্রী হামাদি জিবালি দেশটির অনুন্নত ও দারিদ্র্যকবলিত এলাকায় দ্রুত বিনিয়োগের মাধ্যমে কর্মসংস্থান সৃষ্টি ও উন্নয়নের প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। কিন্তু এই প্রতিশ্রুতি তিনি কতটুকু রক্ষা করতে পারবেন তা নিয়ে সন্দেহ রয়েছে। কেননা, বিপ্ল¬বের কারণে বিদেশি বিনিয়োগ ও ব্যবসায়-বাণিজ্যে যে স্থবিরতা নেমে এসেছে তা এখনো স্বাভাবিক হয়নি। আফ্রিকা মহাদেশের মধ্যে শিল্পায়নের দিক থেকে দক্ষিণ আফ্রিকার পরই তিউনিসিয়ার অবস্থান। ২০১১ সালে দেশটিতে বেকারের সংখ্যা ছিল ছয় লাখের কিছু বেশি। বর্তমানে (২০১২) তা সাড়ে আট লাখে পৌঁছেছে। কিছু বিশ্লেষকের মতে, বেকারত্বের হার বর্তমানে ১৬ শতাংশ থাকলেও বছরের শেষ নাগাদ তা ১৯ শতাংশে গিয়ে দাঁড়াতে পারে।

ক্ষমতাসীন ইসলামপন্থি আন নাদাহ পার্টির সামনে এখন সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে অর্থনীতির নাজুক অবস্থা ও ক্রমবর্ধমান বেকারত্ব। মানুষ এখন দ্রুত পরিবর্তন দেখতে চায়। বেন আলীর শাসনামলের ক্রমবর্ধমান দুর্নীতি, দারিদ্র্য ও বেকারত্বের অবসান ঘটাতে নতুন সরকার কী পদক্ষেপ নিচ্ছে সেদিকেই সবার দৃষ্টি নিবদ্ধ। এছাড়া ইসলামপন্থিদের বিজয়কে এখনো মেনে নিতে পারেনি ধর্মনিরপেক্ষ মিডিয়া ও জনমতের একটি অংশ। তারা নতুন সরকারের বিরুদ্ধে বিভিন্ন ধরনের নেতিবাচক প্রচারণা চালাচ্ছে, যদিও আন নাদাহ পার্টি মধ্য বামপন্থিদের সাথে নিয়ে জোট সরকার গঠন করেছে; কিন্তু তা সত্ত্বেও ইসলামপন্থিদের বিরুদ্ধে নানা ধরনের প্রচারণা চালাচ্ছে ধর্মনিরপেক্ষতাবাদীরা। এটিও সরকারের জন্য একটি সমস্যা। যেমনটি আমরা নির্বাচনে পরাজিত মিসরের বিরোধী দলগুলোর কর্মসূচির মধ্যে দেখতে পাচ্ছি। মিসরের মুসলিম ব্রাদারহুডের দ্বারা অনুপ্রাণিত হয়েই তিউনিসিয়ায় গড়ে ও বেড়ে উঠেছে আন নাদাহ পার্টি। ১৯৮১ সালে এই দলটি প্রতিষ্ঠা করেন রশিদ ঘানুশি ও অন্যান্য ইসলামপন্থি বুদ্ধিজীবী ও রাজনীতিক। কিন্তু বেন আলীর ২৩ বছরের শাসনামলে দলটি তার কার্যক্রমই চালাতে পারেনি ঠিকমতো। ১৯৯০-এর দশকে আন নাদাহর ৩০ হাজার নেতাকর্মীকে গ্রেফতার ও অনেককে নির্বাসনে যেতে বাধ্য করা হয়। কিন্তু বেন আলী সরকারের নিপীড়নের মধ্যেও আন নাদাহর সাংগঠনিক তত্পরতা ও বিস্তার অব্যাহত ছিল। যার প্রমাণ মিলেছে বেন আলীর পতনের পর আন নাদাহর অবিস্মরণীয় উত্থানে। নির্বাচনে বিজয়ের মধ্য দিয়ে দলটি তার ভিত্তিকে প্রমাণ করে দিয়েছে। হাবিব বরগুইবা ও বেন আলীর অর্ধশতাব্দীর শাসনামলে কঠোর ধর্মনিরপেক্ষতার নীতি অনুসরণ করা হয়েছে। পশ্চিমাদের খুশি রাখতে ইসলামী কোনো দলকে প্রকাশ্যে তত্পরতাই চালাতে দেননি বরগুইবা ও বেন আলী। দীর্ঘদিন ধরে নিষিদ্ধ ঘোষিত দলটি এখন তিউনিসিয়ার সরকার চালাচ্ছে। এটিও একটি বড় বিস্ময়। গত মার্চে (২০১২) আন নাদাহ পার্টির প্রতিষ্ঠাতা ও চিন্তাবিদ ড. রশিদ ঘানুশি প্রভাবশালী এলিটদের নিয়ে ছোট্ট একটি আলোচনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করেন তিউনিসিয়ার সেন্টার ফর দি স্টাডি অব ইসলাম এন্ড ডেমোক্রেসির মিলনায়তনে। বিশ্ব মিডিয়াতে তার বক্তব্যগুলোকে ফলাও করে প্রচার করা হয়। কিন্তু কী ছিল তার বক্তব্যের মধ্যে! তার প্রধান বক্তব্য ছিল ইসলাম ও গণতন্ত্রের মধ্যে কোনো দ্বন্দ্ব নেই। ইসলাম সেক্যুলারিজমের সাথে একসাথে চলতে পারে। অর্থাত্ গণতন্ত্র ও ইসলামের মিশ্রণ ঘটিয়ে একটি আদর্শের ওকালতি করেন তিনি। তিনি বলেন, “ধর্মনিরপেক্ষতা আবির্ভূত হয়েছে, বেড়ে উঠেছে এবং পশ্চিমে প্রতিভাত হয়েছে ক্রিয়াবিধিগত সমাধান হিসেবে। কোনো দর্শন ও অস্তিত্ববাদী তত্ত্বের প্রেক্ষিতে নয়। ইউরোপের সমস্যা সমাধান হিসেবে জন্মগ্রহণ করে ধর্মনিরপেক্ষতা।” তার এ বক্তব্যের পর তাকে মধ্যপ্রাচ্যের অনেক বিশ্লেষক “ইসলামী সেক্যুলার” বলে অভিহিত করেছেন। ২০০৬ সালে হামাসের জয়ের পর থেকে তিউনিসিয়ায় আন নাদাহ পার্টির বিজয়, মিসরের ব্রাদারহুডের বিজয়, মরক্কো, তুরস্কে ইসলামপন্থিদের বিজয়ের মধ্য দিয়ে একটি বিষয় স্পষ্ট হয়ে ওঠে, মুসলিম উম্মাহ ইসলাম দিয়ে শাসিত হতে চায়। শুধু নির্বাচন ব্যবস্থাকে তারা গ্রহণ করেছে প্রতিনিধিত্বশীল নেতা নির্বাচনের ‘উপকরণ’ হিসাবে। আর শুধু নির্বাচন মানে যে গণতন্ত্র নয়, তা মুরসি-জিবালিরাও জানেন। ওবামাও জানেন। নির্বাচনকে নেতা নির্বাচনের উপকরণ হিসেবে মুসলিমরা মানলেও পশ্চিমা ‘মানুষের তৈরি আইনে’র সেক্যুলার গণতন্ত্রকে ধার্মিক মুসলিমরা কখনো মানে না।

শেষে বলা যায়, অর্থনৈতিক সমস্যার পাশাপাশি মডারেট হিসাবে পরিচিত নাদাহ পার্টি রাজনৈতিক কোন আদর্শে দেশ গড়বে তাও একটি চ্যালেজ্ঞের বিষয়। কারণ, যে সাধারণ মানুষ আন নাদাহ পার্টিকে একটি শুদ্ধ ইসলামী ব্যবস্থার জন্য ভোট দিয়েছে। ২০১৩ সালের নির্বাচনের জন্য জনগণের কাছেই দলটিকে তার ইসলামী সেনসেশন নিয়ে ফিরে যেতে হবে।

লেখক: মধ্যপ্রাচ্য বিষয়ক এমফিল গবেষক, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

shoheldu412@gmail.com

গত ২৮ ফেব্রুয়ারি একটি পত্রিকায় প্রকাশিত ‘কোচিং-বাণিজ্য অবশ্যই বন্ধ করতে হবে’ শিরোনামের লেখার সাথে কিছু বিষয়ে দ্বিমত পোষণ করছি। লেখায় বেশ কিছু স্ববিরোধী বক্তব্য রয়েছে।
শেখ জামাল উদ্দিন একটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক। থাকেন ইব্রাহিমপুরের টিনশেড বস্তিতে। পরিবারের সদস্য মোট তিনজন। নিজেসহ এক মেয়ে ও স্ত্রী খাদিজা বেগম। এক রুমেই থাকেন মেয়ে ও স্ত্রী নিয়ে। তার মাসিক বেতন ৮৫০০ টাকা। বাসা ভাড়া দেন ৩০০০ টাকা। শুধু চাল কিনতেই খরচ হয় ১০০০ টাকা। এই মানুষ গড়ার কারিগরের সংসারের বাকি খরচ কিভাবে চলে তার ফিরিস্তি আর দিতে চাই না। তিনিও প্রাইভেট কোচিং করান। ব্যাচে তার স্কুলের পঞ্চম শ্রেণীর পাঁচজন ছাত্রকে পড়ান। ২০০ টাকা করে ১০০০ টাকা বাড়তি আয় করেন। তার এই আয়কে আমরা কিভাবে দেখব, নৈতিক না অনৈতিক?
আলোচ্য কলামিস্ট দেশব্যাপী ভালো ফলাফলের সাথে শিক্ষার মান নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন। মান উন্নত করার ক্ষেত্রে শুধু শিক্ষকের শ্রেণিকক্ষের ভূমিকা জড়িত নয়। একাধিক বিষয় এ ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট, যা শুধু শিক্ষকের একার পক্ষে নিশ্চিত করা সম্ভব নয়; যেমন কাঠামোগত ও অকাঠামোগত বিষয়গুলো। আর অংশগ্রহণমূলক আধুনিক শিক্ষাবিজ্ঞান শুধু শিক্ষককে এখন জ্ঞানের উৎস হিসেবে বিবেচনা করে না। শিক্ষক হলেন পথপ্রদর্শক এবং শ্রেণিকক্ষে শিক্ষার পরিবেশ তৈরিকারক। তাই শুধু কোচিং বন্ধের সিদ্ধান্ত উন্নত শিক্ষার পরিবেশ গড়ে তুলবে না। বরং অর্থসঙ্কটে ভোগা শিক্ষক শ্রেণিকক্ষে আগে যা পড়াতেন, তার চেয়ে আরো বেশি অমনোযোগী থাকবেন।
‘শিক্ষাই জাতির মেরুদণ্ড’। তাহলে শিক্ষক জাতির কী! গ্রামে-শহরে শিক্ষকদের সামাজিক মূল্যায়ন বর্তমানে এতই কমে গেছে যে, আগের স্যার বা গুরুজির জায়গা দখল করেছে তাচ্ছিল্যপূর্ণ ‘মাস্টার’ অভিধা। শহরের ধনীরা মাসিক খরচের বিল হিসাবের সময় বুয়া, ঝাড়ুদার ও মাস্টারের বিলটা এক সাথে হিসাব করেন। ধনিক শ্রেণী বাসায় গিয়ে প্রতি বিকেলে খুব নমনীয়ভাবে কলবেল টিপতে কোনো শিক্ষকই চাইতেন না, যদি তাদের সংসার খরচের ন্যূনতম টাকাটা বেতনের টাকায় মিটত। আজকের পুঁজিবাদী সমাজে সামাজিক মূল্যায়নটাও ব্যক্তির সম্পদের ওপর নির্ভর করে। শিক্ষকেরাও চান বিকেলে এ শহরের বড়লোকদের মতো একটু জগিং করতে, বউ-ছেলে-মেয়ে নিয়ে ঘোরার শখ তাদেরও আছে। কিন’ তার বিকেল কাটে টিকে থাকার সংগ্রামে বড়লোকদের বাড়ি বাড়ি টিউশনি করে।
সরকার প্রাইভেট কোচিং বন্ধের আইন করছে। আমরাও চাই ছাপোষা ঘানিটানা জীবনের চক্র থেকে বের হয়ে আসতে। তবে এই সরকার ক্ষমতায় আসার পর থেকে তিন বছর ধরে শিক্ষকদের আলাদা বেতন কাঠামোর যে প্রতিশ্রুতি দিয়ে আসছে, তার বাস্তবায়ন আমরা আগে দেখতে চাই। তা না হলে কোচিং বন্ধের আইন ও ধূমপান বন্ধের আইনের মতো নিষ্ক্রিয় হয়ে থাকবে।
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পাস করে বের হয়েছিলাম দেশ ও সমাজ গড়ার মহান ব্রত বুকে নিয়ে। কিন’ যখন দেখলাম আমি ও আমার বন্ধুরা প্রথম শ্রেণীতে প্রথম, দ্বিতীয়, তৃতীয় এমনকি দশম হয়েও লাভ হলো না। আমাদের এক সহপাঠী বন্ধু আঠারোতম হয়ে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক হয়ে গেলেন, যার অনার্সের রেজাল্ট প্রথম ১০০ জনের মধ্যেও ছিল না, তবে তার বিশেষ যোগ্যতা ছিল। একটি রাজনৈতিক মতাদর্শের কিছু প্রভাবশালী শিক্ষক ও ছাত্রনেতার সাথে ভালো যোগাযোগ ছিল। পাঠক, আপনারাই বিচার করুন, এ ধরনের ‘যোগ্যতাসম্পন্ন’ শিক্ষকদের কাছ থেকে সরকার বা জনগণ কী মান আশা করতে পারে? এমন দুর্নীতি এখন প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ে পর্যন্ত সব নিয়োগের ক্ষেত্রেই হামেশা দেখা যাচ্ছে।
আলোচ্য নিবন্ধের লেখক নিজে শিক্ষক হয়েও ঢাকা শহরের শিক্ষকদের ফ্ল্যাট কেনা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন। জাতি গড়ার কারিগরদের তিনি কোথায় বাস করা দেখতে চান? ইব্রাহিমপুরের টিনশেডে? নাকি আরো বাজে কোনো জায়গায়? যদি তা-ই হয়, তাহলে আমাদের শিক্ষার মান কোনো দিনও ভালো হবে না। জাতি যদি শিক্ষকদের উন্নত জীবন দিতে পারে, গুলশান বনানীর মতো জায়গায় তাদের ফ্ল্যাট দিতে পারে, তাহলেই সারা দেশ একদিন গুলশান-বনানী হয়ে উঠতে পারে। যদি টিনশেডের বস্তিতে রাখেন, তাহলে আপনার সন্তানদের জিপিএ এনে দিতে পারলেও প্রকৃত শিক্ষিত ও দক্ষ মানুষ হিসেবে গড়ে তুলতে পারবেন না। ফ্ল্যাটে থাকার বিষয়টি নিয়ে প্রশ্ন তুলে জাতিকে এখানে ছোট করা হয়েছে। কারণ, প্রশ্নটি এসেছে শিক্ষকদের প্রতি সমাজের দৃষ্টিভঙ্গির জায়গা থেকে। যেমন- ‘শিক্ষকদের কেন গাড়ি-বাড়ি থাকবে?’ কিন’ যে শিক্ষকেরা জাতির বিবেক ও মস্তিষ্ক গড়ে, তাদের মস্তিষ্ক যদি ছাপোষা জীবনের সাথে যুদ্ধ করতে করতে ক্ষয়ে যায়, শিক্ষার্থীরা তাদের কাছ থেকে কী মনোবল অর্জন করবে? শিক্ষকের কাছ থেকে কি শিক্ষার্থীরা শুধু বই পড়াই শেখে?
শহরাঞ্চলের রেজাল্ট ভালো হওয়া নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন। এতে নেতিবাচক কিছু দেখার নেই। এটা খুব স্বাভাবিক, বিশ্বের সব রাজধানী শহরেই দেশের ভালো ভালো স্কুল-কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয় থাকে। সেখানে ভালো ভালো শিক্ষকও নিয়োগ দেয়া হয়। আর শহরের প্রযুক্তি ও যোগাযোগের সব ধরনের মাধ্যম শিক্ষার্থীদের হাতের নাগালে, তাই সৃজনশীল প্রশ্নের এ যুগে শহরের শিক্ষার্থীরা অনেক বেশি আপডেটেড ও সচেতন হিসেবে গড়ে উঠছে। ফলে শিক্ষকদের, শিক্ষার্থীর ও তাদের বাবা-মায়েদের সচেতন ভূমিকায় ভালো ফল হতে পারে এবং গ্রামের তুলনায় দক্ষতর শিক্ষার্থী হিসেবে গড়ে উঠতেই পারে। তবে গ্রামেও মেধাবীরা যাতে শিক্ষক হিসেবে যেতে চায়, সরকারের উচিত সে ব্যবস’া করা।
শিক্ষাক্ষেত্রটাও আন্তর্জাতিক আইন অনুযায়ী সেবাক্ষেত্র বা সার্ভিস সেক্টরের মধ্যে পড়ে। তাই ডাক্তার, ইঞ্জিনিয়ার, উকিল যারা বুদ্ধিবৃত্তিক কাজ করে থাকেন, তারা যদি নিয়মিত চাকরির পাশাপাশি বিকেলে নিজস্ব চেম্বারে সমাজসেবার জন্য বসতে পারেন, শিক্ষকরা কেন পারবেন না? শিক্ষকদের সেবাটা তো আরো নিত্যনৈমিত্তিক প্রয়োজন এবং আরো সুদূরপ্রসারী ফলদায়ক। ডাক্তার শরীরের সেবা করেন, শিক্ষক মনের। একজন শিক্ষক শুধু একটি বিদ্যালয়ের শিক্ষক নন। তিনি পুরো সমাজের শিক্ষক। সবার জন্য একই আইন হওয়া উচিত। কিন’ তা বাস্তবসম্মত ও যৌক্তিক নয়। কারণ কেউ যদি হাসপাতালে বা বিদ্যালয়ে ঠিকমতো কাজ না করে, তবে সংশ্লিষ্ট প্রশাসন দায়ী। সরকারের উচিত বিদ্যালয় প্রশাসনকে আরো বেশি কিভাবে কার্যকর করা যায়, তার ব্যবস’া করা। সত্যি হচ্ছে, যে শিক্ষক ক্লাসরুমে ভালো পড়ান তার কাছেই শিক্ষার্থীরা কোচিংয়ে পড়তে যায়। বেতন না বাড়িয়ে, মর্যাদাপূর্ণ উন্নত জীবনের নিশ্চয়তা তৈরি না করে, কোচিং বন্ধ করা হলে তাকে আরো বেশি অর্থনৈতিক ও সামাজিক যন্ত্রণায় ফেলা হবে। এটা জাতির জন্য মঙ্গলজনক হবে কি? আর ন্যাশনাল কারিকুলামের শিক্ষকদের জন্য না হয় আইন করলেন, কিন’ ইন্টারন্যাশনাল কারিকুলামের শিক্ষকদের ব্যাপারে এমন; কী করবেন, তাও সরকারকে ভাবতে হবে। ভাবতে হবে, ঢাকা শহর মানেই বাংলাদেশের ৬৮ হাজার গ্রাম নয়।
দক্ষিণ কোরিয়ার কোচিং বন্ধের উদাহরণ দিলেও আলোচ্য লেখক কিন’ বলেননি কোচিং বন্ধের আগে সরকার শিক্ষকদের কী কী সুযোগ-সুবিধা দিয়েছে ও বেতন কী হারে বাড়িয়েছে। কোরিয়ার একজন মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকের মাসিক আয় ন্যূনতম ১৮ লাখ থেকে ২৪ লাখ। এখন হিসাব করুন, আমাদের ও কোরিয়ার শিক্ষকদের বেতনের ব্যবধান। পাশের ভারতেও একজন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক বাংলাদেশী টাকার ৩৬ হাজার টাকা মাসিক বেতন পান, যা আমাদের শিক্ষকদের চেয়ে সাড়ে চার গুণ। শিক্ষাক্ষেত্রে বিশ্বে সবচেয়ে এগিয়ে যুক্তরাজ্য ও যুক্তরাষ্ট্র। এ দুটি রাষ্ট্র ছাড়াও কোনো উন্নত দেশের কোথাও কোচিং বন্ধের কোনো আইন নেই। কোচিংয়ের বিরুদ্ধে আইন করা জরুরি নয়।
শিক্ষকদের বেতন না বাড়িয়ে কোচিং বন্ধ করার আইন যেন পাড়ার রাজনৈতিক বড় ভাই কর্তৃক নিরীহ ছেলেটির ওপর অহেতুক দাদাগিরি। অন্যভাবে বললে ‘মড়ার উপর খাঁড়ার ঘা’। কিছু শিক্ষক অতিমাত্রায় বাণিজ্যিক মানসিকতার হয়ে উঠতে পারেন। এখন যদি বলি এ জাতির সবচেয়ে ভালো মানুষগুলো কারা- মানুষ উত্তর দেবে ‘আমাদের শিক্ষকেরা’। মন্ত্রী মহোদয় কথাগুলো যুক্তি ও বাস্তবতার আলোকে চিন্তা করে সিদ্ধান্ত নেবেন।

দেশের প্রতিটি যুক্তিশীল মানুষই মানবতাবিরোধী বর্তমান-অতীত সকল অপরাধের বিচার চায়। আমরা চাই প্রকৃত যুদ্ধাপরাধের বিচার হোক। বিচার হোক সাগর-রচনি হত্যার। বিচার হোক পদ্মা সেতু দুর্নীতির। বিচার হোক সংসদ সদস্য সুরঞ্জিত সেনের চাপা পড়া রেল দুর্নীতিসহ বাকি সকল অপরাধের। যে বিচার হবে স্বচ্ছ ও নিরপেক্ষভাবে। এ প্রসঙ্গে আমেরিকার সুপ্রিমকোর্টের সাবেক প্রধান বিচারপতি ওয়ারেন ই. বার্জারের একটি উক্তি মনে পড়ছে। তিনি বলেছিলেন, ‘‘বিচারকরা বিচার করেন আইনের ভিত্তিতে, কোনো জনমতের ভিত্তিতে নয়। তাদের সকল সময়ের সকল চাপ থেকে দূরে থাকা উচিত’’। কিন্তু সমস্যা হলো, বর্তমান সরকারের গঠিত এই ট্রাইব্যুনালের রায়ে সরকারপক্ষ বা বিরোধীপক্ষ কেউ যখন সন্তুষ্টু হতে পারে না, তখন পুরো বিচারব্যবস্থাই প্রশ্নের সম্মুখীন হয়ে পড়ে। গণতান্ত্রিক বা ইসলামী সকল রাষ্ট্রব্যবস্থার একটি মৌলিক উপাদান আইনের শাসন। আর তা নিশ্চিত করে একটি দেশের আইন প্রয়োগ সংস্থা ও বিচারবিভাগ। এর ব্যত্যয় ঘটলেই তৈরি হয় মানুষের আইনের প্রতি শ্রদ্ধাহীনতা। দেশে শুরচ হয় অরাজকতা।

যুদ্ধাপরাধের বিচারে জামায়াতে ইসলামীর নেতা কাদের মোল­v ও দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীর রায় নিয়ে দেশে ৫ মার্চ পর্যন্ত ১৫৫ জন মানুষকে হত্যা করা হয়। সারাদেশে অপ্রতিহত গতিতে চলছে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর হাতে রাজনৈতিক গণহত্যা। মনে হচ্ছে দেশ এক বধ্যভূমিতে পরিণত হয়েছে। মানবতাবিরোধী অপরাধের বিচারে আটক রাজনৈতিক নেতাদের ফাঁসির দাবিতে রাজধানীর শাহবাগে আন্দোলন শুরচর পর ৫ ফেব্রচয়ারি পর্যন্ত সারাদেশে ১৫৫ জন রাজনৈতিক নেতা-কর্মী ও সাধারণ মানুষ র‌্যাব-পুলিশ-বিজিবি এবং সরকারি দলের সশস্ত্র ক্যাডারদের গুলীতে নিহত হয়। এদের মধ্যে ১২৩ জন নিহত হয় ২৮ ফেব্রচয়ারি থেকে ৪ মার্চ, ২০১৩  পাঁচ দিনে পুলিশ ও সরকার সমর্থক পেটোয়া বাহিনী ও দলীয় ক্যাডারদের হাতে।

পুলিশী হামলায় এত কান্না, এত রক্ত, এত মৃত্যু স্বাধীনতার পর থেকে এ দেশের মানুষ আর কখনো প্রত্যক্ষ করেনি। মানুষ মরছে। তাই সে যে দলেরই হোক, আওয়ামী লীগের হোক বা জামায়াতের। মরছে আমাদের ভাই, বোন, আত্মীয় অথবা বন্ধু! দেশের ইতিহাসে ভয়াবহতম এ রাজনৈতিক গণহত্যা চলতে থাকলেও রহস্যজনকভাবে নীরব তথাকথিত মানবাধিকার সংগঠনগুলো। সাবেক ছাত্রলীগ নেতা ডাক্তার ইমরান এইচ সরকারের নেতৃত্বে ব­গার এন্ড অনলাইন একটিভিস্ট-এর ব্যানারে কাদের মোল­vর রায়ের পর থেকে তারা সকল যুদ্ধাপরাধীর একমাত্র ফাঁসির দাবি নিয়ে আন্দোলন করে যাচ্ছে। কিন্তু, মাওলানা সাঈদীর রায়ের সঙ্গে সঙ্গে সারাদেশে শুরচ হয় স্বাধীনতা পরবর্তী সবচেয়ে বড় পুলিশ-ছাত্রলীগ-আওয়ামী লীগ বনাম জামায়াতে ইসলামী ও সমমনা মানুষের মধ্যে সংঘর্ষ। ফেব্রচয়ারি মাসে সরকারের ‘জিরো টলারেন্স’ নীতি ঘোষণা ও পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার (কমিশনার) ‘দেখা মাত্র গুলীর’ আদেশের বাস্তবায়ন বুঝি জাতি দেখল মার্চের ১ থেকে ৬ তারিখ।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বক্তব্য হলো, কোনো কিছু করেই যুদ্ধাপরাধীদের বিচার বন্ধ করা যাবে না। আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামন্ডলীর সদস্য সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত বলেন, সাম্প্রদায়িক উন্মাদনা সৃষ্টি করে, ভয়ভীতি দেখিয়ে যুদ্ধাপরাধীদের বিচার ঠেকানো যাবে না।  অন্যদিকে, পুলিশের সাধারণ মানুষের মিছিলের ওপর হামলা নিয়ে মন্তব্য করতে গিয়ে বিরোধীদলীয় নেতা খালেদা জিয়া বলেন, সরকার সারাদেশে ‘গণহত্যা’ চালাচ্ছে। দেশে আবার চলছে ‘পৈশাচিক গণহত্যা’।৩ দেশের সংখ্যাগরিষ্ঠ মানুষের ধর্ম নিয়ে জাতিকে সংঘাতের পথে ঠেলে দিয়ে এবং নিজের দেশের নাগরিকদের ওপর বর্বর হত্যাকান্ড চালিয়ে তারা ক্ষমতায় থাকতে চান।

এ পরিস্থিতি থেকে কোনো সুস্থ মানুষই স্বীকার করবে না যে, দেশে আইনের শাসন বলে কিছু আছে। মিছিল হলেই গুলী, চাই সে অরাজনৈতিক হোক, আর রাজনৈতিক হোক। বিরোধী ও ইসলামী দলের নেতা-কর্মীদের দিয়ে টইটম্বুর দেশের জেলখানাগুলো। সম্পূর্ণ বিনা বিচারে কোনো মামলা ছাড়াই মানুষকে পুরে রাখা হচ্ছে জেলে। কাউকে দমাতে না পারলে তাকে পুলিশ আগে আটক করছে। পরে শারীরিক নির্যাতনের মাধ্যমে অন্যায় না করলেও স্বীকারোক্তি নিয়ে কেস দেয়া হচ্ছে। বাংলাদেশ যেন পরিণত হয়েছে আরব বসন্তপূর্ব পুলিশীরাষ্ট্র তিউনিশিয়ায়। এমন মানবাধিকারের লঙ্ঘন পৃথিবীর খুব কম দেশেই আজ বিদ্যমান। বিচারের বাণী যেন নিভৃতে কাঁদে।

দেশের আইনের প্রতি, বিচার বিভাগের প্রতি আস্থা বিরোধী দল বা সরকারি দলেরও নেই। সরকারের নিজের তৈরি ট্রাইব্যুনাল সরকারের মনোপুত রায় না দিলে, সে রায় আর সরকারও গ্রহণ করছে না। মানবতাবিরোধী অপরাধে কাদের মোল্লার বিরুদ্ধে যাবজ্জীবনের রায়ে হতাশা প্রকাশ করেন সরকার ও রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবীরা। স্কাইপে কেলেঙ্কারিতে এমনিতেই এ ট্রাইব্যুনাল প্রশ্নবিদ্ধ, আর কাদের মোল্লার রায়ের পর বাদী-বিবাদী উভয়ের রায়কে অগ্রহণযোগ্য মনে করায় প্রশ্নটা আরো বৃহৎ আকার ধারণ করেছে। আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল-আলম হানিফ বলেন, যুদ্ধাপরাধের বিচারের জন্য গঠিত ট্রাইব্যুনালে কাদের মোল্লার রায়ে পুরো জাতির সাথে আমরাও সন্তুষ্ট হতে পারিনি।

বিচার বিভাগের ভূমিকা আর আওয়ামী লীগের ও প্রজন্ম চত্বরের ডা. ইমরান এইচ সরকারদের সকল যুদ্ধাপরাধীর শুধু ফাঁসির দাবি বাস্তবায়নের কাজ সরকার বিচার বিভাগের কাছে না দিয়ে র‌্যাব বা পুলিশের হাতে ছেড়ে দিলে বিচার বিভাগের গায়ে আর কলঙ্ক লাগতো না! পুলিশ-র‌্যাব এতো মানুষকে গুলী করে মারছে আর এ তিন-চার জনকে হত্যার দায়িত্ব কেন বিচার বিভাগের কাছে দেয়া হলো? না-কি বিচারের চেয়ে নির্বাচনের আগে রাজনৈতিক ফায়দা লোটাই এ লোক দেখানো রাজনৈতিক বিচারের প্রধান উদ্দেশ্য।

১৫ ফেব্রচয়ারি ব­গার রাজীব হত্যার পর বিভিন্ন গণমাধ্যমে তার ও তার সহকর্মীদের ইসলামবিরোধী বিভিন্ন নিবন্ধ প্রকাশিত হলে দেশব্যাপী ফুঁসে ওঠেন ইসলামপ্রিয় মানুষ। জামায়াতে ইসলামীসহ দেশের সব ইসলামী দলই এসব ব­গারের ইসলামবিরোধী তৎপরতার বিরচদ্ধে কর্মসূচি ঘোষণা করে। এরই ধারাবাহিকতায় ২২ ফেব্রচয়ারি ইসলামী ও সমমনা দলগুলো নাস্তিক ব­গারদের গ্রেফতার দাবিতে বায়তুল মোকাররম মসজিদে বিক্ষোভ করে। এ বিক্ষোভ মিছিল রাজপথে নামলে গুলী চালায় পুলিশ। ইসলামপ্রিয় মানুষের ক্ষোভ আরো বাড়তে থাকে। সরকার ব­গারদের ইসলামবিরোধী কর্মকান্ডকে সমর্থন দিলে সরকারের বিভিন্ন বড় দুর্নীতি ও ফ্যাসিবাদী নীতির বিরুদ্ধে মানুষের জমে থাকা ক্ষোভের আগুনে যেন  ঘি ঢালা হয়। প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক নাস্তিক রাজীবকে দ্বিতীয় মুক্তিযুদ্ধের ‘প্রথম শহীদ’ উপাধি দেয়াকে মুসলিমরা প্রধানমন্ত্রীর ইসলামের বিপক্ষ নেয়া হিসেবে ধরে নেয়। প্রধানমন্ত্রী ভুলে গিয়েছিলেন মুসলমানদের ধর্মের ওপর আঘাত আসলে, তাও সাম্প্রদায়িক আঘাত হয়। শুধু হিন্দু বা খ্রিস্টানদের ধর্মে আঘাত হলে সাম্প্রদায়িক আগ্রাসন হয় না। সংখ্যালঘিষ্ঠদের অধিকার নিয়ে সরকার ও আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় যতটা সচেতন, সংখ্যাগরিষ্ঠ মুসলিমদের অধিকার নিয়ে তারা যেন ততটাই উদাসীন। তা না হলে, রাজীবের মতো সাম্প্রদায়িক নাস্তিক কীভাবে ‘প্রথম শহীদ’ উপাধি পায় এ দেশে? এটা কি মুসলমানদের মানবাধিকার লঙ্ঘন করে না? আর এর প্রতিবাদ করতে গেলে মসজিদের মুসল্লিদেরও বানিয়ে ফেলা হয় রাজাকার। আর আওয়ামী নীতিতে রাজাকার হত্যা করলে তো আইনের শাসন বা মানবাধিকার লঙ্ঘন হয় না!

দেশে ক্রমবর্ধমান সংঘর্ষ ও পুলিশের নির্বিচারে গুলীবর্ষণের ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করে মানবাধিকার সংস্থা ‘অধিকার’। সংস্থাটি বলে, নির্যাতনের ক্ষেত্রে সরকারের ‘জিরো টলারেন্স’ ঘোষণা সত্ত্বেও আইন প্রয়োগকারী সংস্থার নির্যাতন এবং তাদের দায়মুক্তি বন্ধে কোনো কার্যকর ব্যবস্থা নেয়া হয়নি বরং মানবাধিকার লঙ্ঘনে তাদের আরও উৎসাহিত করা হয়েছে। সংস্থাটি ফেব্রচয়ারি মাসের প্রতিবেদনে বলে, ফেব্রচয়ারি মাসে ৩৭ জন বিচারবহির্ভূত হত্যাকান্ডর শিকার হয়েছেন। শাহবাগের ‘গণজাগরণ মঞ্চ’ নামে দলীয় সমাবেশ থেকে ভিন্নমতাবলম্বী পত্রিকা আমার দেশ, নয়া দিগন্ত এবং ভিন্নমত পোষণকারী বিশিষ্ট ব্যক্তিদের হুমকি-ধমকি দেয়া হয়। সংস্থাটির রিপোর্টে ব­গে আল­vহ ও মহানবী (সা.) সম্পর্কে কটূক্তি, ঐ ঘটনার জের ধরে সহিংসতা, সাংবাদিকদের ওপর হামলা, সভা-সমাবেশে বাধা, ফৌজদারি কার্যবিধির ১৪৪ ধারা জারিকেও মানবাধিকার লঙ্ঘন হিসেবে উলে­খ করা হয় (দৈনিক আমার দেশ : ০২/০৩/২০১৩)।  দেশের বর্তমান রাজনৈতিক অস্থিরতায় সরকারকে দায়ী করে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় থেকেও আপত্তি তোলা হয়। বাংলাদেশের সাম্প্রতিক সহিংসতার ঘটনায় জাতিসংঘের মহাসচিব বান কি মুন ও মার্কিন পররাষ্ট্র দফতর গভীর উদ্বেগ জানান। ২ ফেব্রচয়ারি ২০১৩ জাতিসংঘের এক বিবৃতিতে এবং মার্কিন পররাষ্ট্র দফতরের এক প্রেস ব্রিফিংয়ে এই উদ্বেগের কথা জানানো হয়। জাতিসংঘ মহাসচিব বলেন, যুদ্ধাপরাধীদের বিচার একটি জাতীয় প্রক্রিয়া, তাই এ বিষয়ে আইনের শাসনের প্রতি সব পক্ষের সম্মান দেখানো উচিত। সংঘাতের পথ পরিহার করে শান্তিপূর্ণ মতামত দেয়া উচিত।

ইসলামবিদ্বেষী ব­­গারদের বিরচদ্ধে দেশব্যাপী আন্দোলন এবং শাহবাগ আন্দোলন যখন সমান্তরালভাবে চলছে, হামলা-মামলায় দেশবাসী সন্ত্রস্ত, তখন সবকিছুকে ছাপিয়ে ‘বোমা’ ফাটাল একটি ভারতীয় গণমাধ্যম ইংরেজি দৈনিক ‘দ্য টাইমস অব ইন্ডিয়া’। ২৬ ফেব্রচয়ারি এ পত্রিকাটির শীর্ষ শিরোনাম ছিল- ‘প্রটেস্টারস অ্যাট শাহবাগ ইন বাংলাদেশ ব্যাকড বাই ইন্ডিয়া’। অর্থাৎ শাহবাগের আন্দোলনে ভারতের মদত রয়েছে। স্বভাতই এ খবরটি বাংলাদেশের বিভিন্নমুখী চলমান আন্দোলনে যোগ করেছে নতুন মাত্রা। পাশাপাশি বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে জনমনে তীব্র ক্ষোভের সৃষ্টি করেছে ভারতীয় মদদের বিষয়টি। অন্যদিকে, নতুন প্রজন্মের সেক্যুলার নাস্তিকরা যখন অসাম্প্রদায়িকতার আড়ালে সংখ্যাগরিষ্ঠ মুসলিমদের ধর্ম ইসলাম নিয়ে বিষোদগার চালিয়ে যাচ্ছে, তখন সংখ্যাগরিষ্ঠের ধর্মীয় অধিকার রক্ষায় কথা বলতে এসে আমার দেশে’র সম্পাদক ত্রাতার ভূমিকায় অবতীর্ণ হলেন। সঙ্গে সঙ্গে তিনি হয়ে গেলেন মৌলবাদী ও নব্যরাজাকার। সরকার তাকে শুধু গৃহবন্দী রেখেও সন্তুষ্ট নয়। তার বিরচদ্ধে দেয়া হলো পাঁচটি কেস ও দৈনিক আমার দেশ বন্ধের হুমকি। বিপরীতক্রমে, নাস্তিকদের দেয়া হলো রাষ্ট্রীয় নিরাপত্তা। তাদের বিরচদ্ধে ইসলাম ধর্মের মৌলিক বিষয়গুলো নিয়ে বিশ্রী মন্তব্য করার প্রমাণ পাওয়ার পরও এ সবের বিরচদ্ধে একটি তদন্ত কমিটিও করা হলো না। আর প্রতিবাদকারী মুসল্লিলদের ওপরে চালানো হলো হিংস্র পুলিশী নির্যাতন ও গুলী। কেড়ে নেয়া হলো ইসলামপ্রিয়দের প্রাণ। জামায়াত-শিবির-বিএনপি যে সকল জ্বালাও-পোড়াও কর্মকান্ড করেছে, তাও সমর্থনযোগ্য কিছু নয়। তবে বিরোধী দলগুলো যা করেছে গত দেড়-দু’মাসে তা ছিল বিতর্কিত ট্রাইব্যুনালের রায় ও প্রজন্ম চত্বরের নাস্তিকদের ইসলাম অবমাননার প্রতিক্রিয়ার ফল। অর্থাৎ সরকার ও সরকার সমর্থকরা কিছু বিতর্কিত ক্রিয়া করেছে আর বিরোধী দলগুলো তার প্রতিক্রিয়া দেখিয়েছে। সে অর্থে ক্রিয়াকারীর দায়ই বেশি। আমাদের স্মরণ রাখা উচিত, আইনের শাসন ও মানবাধিকারের প্রতি বিরচদ্ধাচরণ করে কোনো ফিরআউন-নমরচদরাও টিকে ছিল না। বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকার যদি মনে করে মুসলমানদের মানবাধিকার নেই, তাহলে ভুল করবে। তারা সুষ্ঠু নির্বাচন এখন দিলে, তাদের জনপ্রিয়তার বেহাল দৃশ্যটা আধুনিক ইতিহাসের ডিজিটাল ক্যানভাসে এক করচণ কাহিনী রচনা করবে বলে মনে হয়।

লেখক : লেখক ও গবেষক

shoheldu412@gmail.com

আধুনিক রাষ্ট্রবিজ্ঞানের জনক ম্যাকিয়াভেলির বিখ্যাত উক্তি ছিল, জোর যার মুলুক তার। পুঁজিবাদী আমেরিকার এই মুলুক দখলের রাজনীতির ফলে ইরাক পরিণত হয়েছে ইতিহাসের মহাশ্মশানে। ইরাক বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম তেল উৎপাদনকারী আরব দেশ। প্রাচীন সভ্যতার অহংকার নিয়ে মধ্যপ্রাচ্যে এর অবস্থান। হাজার বছর ধরে যে মেসোপটেমিয়া অঞ্চল মানব সভ্যতাকে ধারণ করে আছে, আজ তা ক্ষুধা, দারিদ্র্য ও সংঘাতের জনপদ। অপারেশন ইরাকি ফ্রিডম বা ইরাক মুক্ত করার নামে ২০০৩ সালের ২০ মার্চ থেকে ১১ এপ্রিল, এই একুশ দিন ইঙ্গ-মার্কিন বাহিনীর ৩ লাখ সেনা হামলে পড়ে ইরাকের হাজার হাজার মানুষকে হত্যা করে। আর মুসলিম বিশ্বকে বুঝিয়ে দেয় পশ্চিমা স্বাধীনতা কাকে বলে! নির্বিচার বোমাবর্ষণে, গুচ্ছ বোমার আঘাতে ছিন্নভিন্ন হয়ে যায় শিশুদের শরীর, নিহত হয় হাজার হাজার ইরাকি জনগণ। ফোরাত নদীর তীরে, কারবালার প্রান্তরে প্রান্তরে একবিংশ শতকের বুশ-ব্লেয়ার নামক সীমারের হাতে বিপর্যস্ত হয় সত্য, ন্যায়, মানবতা ও মানবাধিকার। জাতিসংঘ, ওআইসিসহ বাকি বিশ্ব নির্বাক চেয়ে থাকে। এর বিপরীতে আমেরিকার দাবি- মিশন সফল হয়েছে। ইরাকে স্বৈরাচারের পতন ঘটেছে, প্রতিষ্ঠিত হয়েছে গণতন্ত্র। ইরাকের মানুষ আজ মুক্ত।

ইরাক যুদ্ধে মার্কিন সরকারের খরচ হয়েছে দুই ট্রিলিয়নের বেশি ডলার। আর জীবনহানি হয়েছে এক লাখ ৮৯ হাজার। ইঙ্গ-মার্কিন নিয়ন্ত্রিত বহুজাতিক বাহিনী ইরাকে যে নৃশংস মানবিক বিপর্যয় ঘটায়, তার অন্যতম হোতা ছিল জাতিসংঘ। সামরিক ও অর্থনৈতিক অবরোধ আরোপ করে সভ্যতার লীলাভূমি ইরাককে পঙ্গু করে দেয়া হয়। অবরোধের জন্য জাতিসংঘে পাস হয় রেজ্যুলেশন ১৪৪১। ইউনিসেফের তথ্য মতে, ১৯৯১ থেকে ১৯৯৮ পর্যন্ত পাঁচ লাখ ইরাকি শিশু মারা যায়।

আজ এক দশক পর বিশ্ববাসীর কাছে পরিষ্কার- আমেরিকা ইরাক আক্রমণ করেছিল মিথ্যা অজুহাতে। পুঁজিবাদীদের স্বার্থসর্বস্ব নীতিহীন রাজনীতির মুখোশ আজ মানুষের কাছে স্পষ্ট। আসলে তারা ভালো করেই জানত সাদ্দাম হোসেনের কাছে কোনো ব্যাপক বিধ্বংসী অস্ত্র (গউড) নেই। জাতিসংঘের অস্ত্র পরিদর্শক দলের প্রধান হ্যান্স বিক্স ও আন্তর্জাতিক আণবিক শক্তি এজেন্সির প্রধান মোহাম্মদ এল বারাদির রিপোর্টে বলা হয়েছিল, ইরাকের কাছে ব্যাপক বিধ্বংসী কোনো অস্ত্র নেই। আমেরিকা ও পশ্চিমা মিত্রদের ইরাক যুদ্ধের প্রকৃত কারণ ২০০১-এর জ্বালানি নিরাপত্তা রিপোর্ট পড়লেই বোঝা যায়। আমেরিকার ভাইস প্রেসিডেন্ট ডিক চেনির এ রিপোর্টে হুশিয়ারি দিয়ে বলা হয়, বিশ্ব জ্বালানি সরবরাহ নিশ্চিত করতে সাদ্দাম হোসেন হুমকিস্বরূপ। এ প্রসঙ্গে আমেরিকার নোবেল বিজয়ী নোয়াম চমস্কি বলেন, আমেরিকার ইরাক আক্রমণ আমাদের ষড়যন্ত্র তত্ত্বেরই বাস্তবায়ন। প্রতিটি মানুষের কাছেই পরিষ্কার, আমরা আমাদের গণতন্ত্রপ্রীতির জন্য ইরাক আক্রমণ করিনি। প্রকৃত কারণ ছিল, ইরাক পৃথিবীর দ্বিতীয় বৃহত্তম তেল মজুদকারী।

২০১০ সালের নির্বাচনের পর থেকে ইরাকজুড়ে যে উত্তেজনা বিরাজ করছে, তার মূলে রয়েছে গোষ্ঠীগত বিভাজন থেকে সৃষ্ট সংঘাত ও হামলা। সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইয়াদ আলাওয়ির নেতৃত্বাধীন ন্যাশনাল মুভমেন্ট ২০১০ সালে সংসদে সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করলেও কোনো জোট গঠন করতে পারেনি। প্রধানমন্ত্রী নুরে আল মালিকির নেতৃত্বাধীন দল স্টেট অব ল অ্যালায়েন্স ও ন্যাশনাল ইরাকি অ্যালায়েন্স এই দুটি ইরানপন্থী জোট সরকার গঠন করে। প্রধানমন্ত্রী মালিকি তাদের সম্প্রদায়গত অবস্থান আরও শক্ত করার জন্য তেল মন্ত্রণালয়, মিলিটারি ও গোয়েন্দা সংস্থাগুলোয় তার অনুগতদের নিয়োগ করেন। ২০১১ সালের ডিসেম্বরে সুন্নিপন্থী উপ-প্রধানমন্ত্রী সালেহাল মুতলাককে তার ক্যাবিনেট থেকে বরখাস্ত করেন এবং ভাইস প্রেসিডেন্টের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন। এই দুজনই ছিলেন সুন্নিপন্থী আল-ইরাকিয়ালিস্ট সংগঠনের সদস্য। এভাবে ইরান সমর্থিত শিয়া নেতা নুরে আল মালিকি তাদের সম্প্রদায়ের লোকজনের ক্ষমতা কেন্দ্রীয় সরকারে পাকাপোক্ত করতে চেষ্টা করেন। দীর্ঘমেয়াদি স্বার্থ উদ্ধার ও সম্পদ লুটপাটের জন্য আমেরিকা ১৭০০০ কর্মচারী ও সৈন্য-সামন্তের বিশাল দল নিয়ে তার দূতাবাস পরিচালনা করছে। আমেরিকা তার কৌশলগত স্বার্থরক্ষা ও জ্বালানি সরবরাহ নিশ্চিত রাখতে এখনও ইরাক ছাড়ছে না। আর এ তেলসম্পদ লুণ্ঠনে আমেরিকাকে সাহায্য করছে মালিকি সরকার।

শাসকগোষ্ঠী পরিবর্তন করে মধ্যপ্রাচ্যে গণতন্ত্রায়নের স্বপ্নও আজ ফিকে হতে বসেছে। সচেতন মানুষরা নিশ্চয় ইরাকের সেদিনের কথা ভুলে যাননি, যখন সিআইএ ও ব্রিটিশ গোয়েন্দা সংস্থাগুলো সাদ্দাম হোসেনকে সহযোগিতা করে ক্ষমতায় টিকিয়ে রেখেছিল। সাদ্দাম শত শত ইরাকিকে হত্যা করেছেন ক্ষমতায় টিকে থাকার জন্য এবং সাম্রাজ্যবাদী প্রভুদের স্বার্থ নিশ্চিত করতে। ইরাক-ইরান যুদ্ধের সময় আমেরিকা দুই দেশের কাছেই অস্ত্র বিক্রি করেছে। বিরোধ মীমাংসা না করে দুই পক্ষের মধ্যে বিভিন্নভাবে যুদ্ধকে দীর্ঘায়িত করতে সাহায্য করেছে। কিন্তু এতদিনের পুরনো বন্ধুর প্রতি আমেরিকা সম্পূর্ণ চোখ উল্টে ফেলে। সাদ্দাম হোসেন কুয়েত আক্রমণ করলে আমেরিকা বিশ্বরাজনীতির মঞ্চে মীরজাফরের ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়ে পুরনো বন্ধু সাদ্দামের বুকে ছুরি চালায়। এখন পর্যন্ত ইরাকের সাধারণ মানুষের মধ্যে বিভাজন, বিভেদ ও সহিংসতার বীজ বপন করে আমেরিকা খলিফা হারুন-অর রশিদের সুসভ্য বাগদাদকে যেন আদিম যুগে পাঠিয়ে দিয়েছে।

Crisis, genocide and forceful replacement have become synonymous with the Muslim World that has turned into problematic world after First World War with the downfall of Ottoman Caliphate (1362-1924) that had been playing the role of the guardian of the Muslim world ensuring security and unity after Abbasid Caliphate (750-1258). Rohingya-genocide is almost a repetition of Palestine who are now also stateless and guardian less nations in the world. Nevertheless, international community is in fact inactive decade after decades to immediate solution of these issues.
Genocide of Rohingya Muslims in Myanmar’s northern Rakhine state has recently entered a horrific stage. A fresh session of state-sponsored persecution has been taking place since August 24, 2017. The murderous Burmese military together with Rakhine  terrorists armed with swords, machetes and guns have started raiding villages of innocent Rohingya civilians in the name of “area clearance operation”. Responding to a ‘shady’ insurgent attack on the Myanmar police and border outposts, Burmese military has undertaken this deadliest military crackdown of the decades. And the most horrifying part of this genocidal operation is that the entire Rohingya population, including women and children, are collectively declared guilty of the attacks. Despite there being no substantiated evidence that if the attackers were in fact from Rohingya, the entire Muslim population is being targeted as “extremists” who are to be completely wiped off the face of the earth. On 8 September 2017, a spokesperson of UNHCR estimated 270,000 Rohingya refugees have sought safety in Bangladesh during last two weeks as well as 1000 have been brutally killed reported by UNO to AFP. Moreover, Bangladesh has already taken heavy load of 5 lacs people before this August tragedy. Recently, UN Secretary General Antonio Guterres stepped up pressure on the authorities, warning of ethnic cleansing against minorities in Rakhine. In a rare letter to the UN Security Council on 4 September 2017, he expressed concern that the violence could get spiral into a “humanitarian catastrophe”.

According to Myanmar military official statement announced on September 2, 2017, nearly 400 Muslims have already been killed. Even though, it is known by international media that the actual figure is undoubtedly much higher, and it is escalating every day. Those who escaped the surging persecution are recounting their gruesome experiences carried out by the regime’s army and Rakhine  militia.

The role of the Muslim rulers and armies are very inhumanely limited in lip service. Actually, only by Bangladesh is not fully possible to solve this transnational problem. Indonesia, Malaysia, Saudi Arabia, Iran, Egypt and other Muslim influential states should come forward with humanitarian assistance, diplomatic maneuvers and military actions. What the Islamic Military Alliance (IMA), an intergovernmental counter-terrorist alliance of countries in the Muslim world, lead by Saudi Arabia, is doing? Bangladesh very eagerly joined the military alliance that has 41 Muslim member states currently still remain silent though the  terrorists are killing Muslims in Myanmar. Where is OIC turning “Oh! I see” and its alliance IMA to solve Muslim’s problems at Rakhine. Indonesian foreign minister and Turkey first lady already visited the spot in Bangladesh and Turkey agreed to send 10 lac tons food assistance. When the largest military alliance equipped with nuclear power will move forward to liberate Rohingaya or Palestine is the question of this oppressed  Muslim children, women and the older  people.

Indian Premier Narendra Modi’s stance on the Rohingya issue has emerged as another example of how the plights of the ethnic minority get trampled at the altar of geo-political considerations. 8 September 2017 in another show of solidarity with Myanmar, India has refused to be a part of a declaration adopted at an international parliamentary forum conference in Indonesia as it carried “inappropriate” reference to violence in Rakhine state from where 1,64,000 Rohingyas have fled to Bangladesh. When the two Asian giants — China and India — have more at stake than the Rohingya miseries, Myanmar can remain unharmed in the face of any international move like that initiated by the UN secretary general who has written to the Security Council to take steps on the Rohingya issue. Russia remains with Myanmar as well. Therefore, China backed by Russia blocked a UN Security Council draft resolution on the Rohingyas. At a closed-door meeting at the Security Council last week, China even opposed effective engagement of the UN in Myanmar on Rohingya issue.
Indeed the believers are but brothers (Al-Hujuraat, 10). And the male believers and female believers are all ‘Awliyaa (protectors, supporters) to one another (At-Taubah, 71). The verses of Al- Quran are obligating the supports (physical, material or oral) of the capable Muslims or Muslim nations to stop the atrocities against Rohingyas. Authentic Hadiths of Prophet Mohammad (SM) are also clear directions to quick response and assistance if any Muslim faces any crisis or danger. The example of the believers in respect to the affection and mercy towards one another is like the example of one single body. If one part complains the rest of the body responds to it with fever and sleeplessness (Mutaffaq ‘Alaihi). The Muslims are like a single man. If his eye complains the whole of him complains and if his head complains the whole of him complains (Muslim). The Muslim is the brother of the Muslim, he does not transgress against him, he does not let him down, and he does not degrade him. Taqwaa is right here. (And he pointed towards his chest three times). It is enough (of a sin) for the Muslim to degrade his Muslim brother. Every Muslim in respect to his brother Muslim is Haraam, his blood, his wealth and his honor (Muslim, Ibn Maajah).
Actually, it is not only a religious minority-cleansing problem, its brutality shaking the world conscience deserving a ‘great humanitarian crisis’ of the history after Granada tragedy in Spain. Still no rulers or leaders have shown eagerness to take responsibilities of the Rohingya but some are being compelled to talk for the Rohingya for their indigenous public support to this prosecuted part of the Muslim Ummah. Unity of Muslim world is very crucial, as Russia, China and India have taken the unjust side of Myanmar. Furthermore, Bangladesh government alone cannot manage the Rohingya’s multiple problems including food, shelter, healt and peaceful returning to their ancestral home in Myanmar.

The writer is  an M.Phil researcher at Dhaka University and an assistant professor in Social Science Faculty in Scholars’ School & College, Dhanmondi, Dhaka. shoheldu412@gmail.com

আমি ইউএনও অফিসে যাচ্ছি। কাজ সেরে ইনশাল্লাহ ফিরে  আসব।” কাঁদো কাঁদো কণ্ঠের উত্তর শোনা যায়। কিন্তু মানুষটি আর ফিরে আসেনি ! ফোনের ওপার হতে শোনা যায় গুলির আওয়াজ (বিবিসি, প্রথম আলো, ২ জুন ২০১৮)। একরাম নিহত হয় তথাকথিত ‘বন্দুক যুদ্ধে’। বিধবা হয় আয়েশা। এতিম হয় তাহিয়াত-নাহিয়ানেরা। হোক একরাম যুবলীগের বা যুবদলের সভাপতি,  হোক মাদকসেবী বা ব্যবসায়ী তাকে বিনা বিচারে বন্দুকের গুলিতে প্রাণ দিতে হবে, এটি একটি আধুনিক সভ্যদেশে গ্রহণযোগ্য হতে পারে না। একটি রাষ্ট্রীয় কাঠামোর মধ্যে  নাগরিক বা বিদেশী হলেও তার অপরাধের উপযুক্ত বিচারের জন্য তার আইনের আশ্রয় লাভের অধিকার দেশীয় বা আর্ন্তজাতিক দুই আইন দ্বারাই সিদ্ধ। রাষ্ট্রের নাগরিকের সঙ্গে রাষ্ট্রের প্রধান  সন্ধিই হলো- রাষ্ট্র নাগরিকের নিরাপত্তা ও অধিকার নিশ্চিত করবে। তা নাহলে ১৯৭১ সালে বাংলাদেশ রাষ্ট্রের জন্মেরও প্রয়োজন ছিল না।

খান শরীফুজ্জামান :“আমি ইউএনও অফিসে যাচ্ছি। কাজ সেরে ইনশাল্লাহ ফিরে  আসব।” কাঁদো কাঁদো কণ্ঠের উত্তর শোনা যায়। কিন্তু মানুষটি আর ফিরে আসেনি ! ফোনের ওপার হতে শোনা যায় গুলির আওয়াজ (বিবিসি, প্রথম আলো, ২ জুন ২০১৮)। একরাম নিহত হয় তথাকথিত ‘বন্দুক যুদ্ধে’। বিধবা হয় আয়েশা। এতিম হয় তাহিয়াত-নাহিয়ানেরা। হোক একরাম যুবলীগের বা যুবদলের সভাপতি,  হোক মাদকসেবী বা ব্যবসায়ী তাকে বিনা বিচারে বন্দুকের গুলিতে প্রাণ দিতে হবে, এটি একটি আধুনিক সভ্যদেশে গ্রহণযোগ্য হতে পারে না। একটি রাষ্ট্রীয় কাঠামোর মধ্যে  নাগরিক বা বিদেশী হলেও তার অপরাধের উপযুক্ত বিচারের জন্য তার আইনের আশ্রয় লাভের অধিকার দেশীয় বা আর্ন্তজাতিক দুই আইন দ্বারাই সিদ্ধ। রাষ্ট্রের নাগরিকের সঙ্গে রাষ্ট্রের প্রধান  সন্ধিই হলো- রাষ্ট্র নাগরিকের নিরাপত্তা ও অধিকার নিশ্চিত করবে। তা নাহলে ১৯৭১ সালে বাংলাদেশ রাষ্ট্রের জন্মেরও প্রয়োজন ছিল না।

সরকারের সাম্প্রতিক মাদক বিরোধী অভিযান একটি মহৎ উদ্যোগ। কিন্তু এর পদ্ধতি, আইনগত ভিত্তি ও কঠোরতা নিয়ে নাগরিক সমাজে পক্ষে-বিপক্ষে নানা মত চালু আছে। মানবাধিকার সংস্থা অধিকারের রিপোর্ট (জুন,২০১৮) অনুযায়ী এ বছরে গত পাঁচ মাসে (জানুয়ারি-মে) দেশে ২২২টি বিচারবহির্ভূত হত্যাকান্ড ঘটেছে। এর মধ্যে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ (ক্রসফায়ার) মারা গেছেন ২১৬ জন। সম্প্রতি র‌্যাব আর পুলিশের মাদকবিরোধী অভিযানে গত ২৩ দিনে (৮ জুন পর্যন্ত ২০১৮) ‘বন্দুকযুদ্ধে’ ১৩৯ জন ‘মাদক ব্যবসায়ী’ নিহত হয়েছেন; গ্রেফতার হয়েছে ১৩০০এর বেশি। ২০১৬ সালে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ মারা যায় ১৫৬ জন ও ২০১৭ সালে ১৭৮ জন (৬ জুন ২০১৮, ডেইলি স্টার)। এ সংখ্যা সংকাজনক হারেই প্রতি বছর বাড়ছে। ২০০২ সালের ১৬ অক্টোবর থেকে ২০০৩ সালের ৯ জানুয়ারি পর্যন্ত তৎকালীন সরকারও সন্ত্রাস দমন ও অস্ত্র উদ্ধারের জন্য একই ধরনের অভিযান ‘অপারেশন ক্লিন হার্ট’ পরিচালনা করে। এসময়ে ৫৭ জন মানুষ আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর কাস্টডিতে প্রাণ হারায় (৬ জুন ২০১৮, ডেইলি স্টার)। 

গত এক যুগেরও বেশি সময় ধরে দেশে যে ‘খুনের বা গুলির সংস্কৃতি’ শুরু হয়েছে তা অনেক যুদ্ধের মৃত্যুর  সংখ্যাকেও হার মানিয়েছে। রাষ্ট্রীয় ভাষ্য মতে সুশাসন প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যেই এমন অভিযান চলেছে। এই মাদক বিরোধী অভিযানটি সুপরিকল্পিত হলে এর প্রথম ধাপে মাদকসেবী ও ব্যবসায়ীদের সংগায়িত করে একটি আইন তৈরি করা হতো এবং যারা এ অপকর্মের সাথে জড়িত তাদের স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসার আহবান করে একটি সাধারণ ক্ষমা ঘোষণা করা যেত। বঙ্গবন্ধু যুদ্ধ অপরাধীদের সাধারণ ক্ষমা করতে পারলে, মাদক ব্যবসায়ীরা কেন সাধারণ ক্ষমা পেতে পারেনা। তাদের পুনর্বাসন ও কর্মসংস্থানেরও সুজোগ সৃষ্টি করা যেত। সরকার যদি দ্রুত এর বিচার সম্পন্ন করতে চাইত, সে ক্ষেত্রে দ্বিতীয় ধাপে একটি দ্রুত বিচার ট্রাইবুনাল গঠন করে প্রকৃত অপরাধীদের শাস্তি আইনি কাঠামোর মধ্যেই সম্ভব হতো। কিন্তু সরকার বা রাষ্ট্র যখন নিজেই আইন ভঙ্গ করে মানুষের জীবনধারনের অধিকার কেড়ে নেয়, তখন সেটি হয়ে পড়ে ব্যর্থ রাষ্ট্র। নাগরিকেরা সে রাষ্ট্র ও সরকারের আনুগত্য করে না। সরকারের আইন, শাসন ও বিচার বিভাগ মুখ থুবড়ে পড়ে, হয়ে যায় অপ্রয়োজনীয়  উপাদান। ক্ষমতাসীন সরকার পড়ে যায় বৈধতার সংকটে (খবমরঃরসধপু ঈৎরংরং)।

এ অভিযানে বর্তমান সরকার সংশ্লিষ্ট মাদক গডফাদাররা পেয়েছে বিশেষ ছাড়, যা সাধারণ মানুষের কাছে স্পষ্ট। কেউ কেউ সরকারের অনুমোদন নিয়ে চলে গেছেন বিদেশ ভ্রমণে। কিন্তু গুলি খেয়ে মরছে মধ্যম সারির ও প্রন্তিক পর্যায়ে জড়িতরা। শুধু মাদক কেন, যারা দেশের মানুষের হাজার হাজর কোটি টাকা লোপাট করে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর নাকের ডগা দিয়ে দিনাতিপাত করে মহাসুখে তাদের কেন কোন বিচার হয়না। দুইশ টাকার আকরামদের কেন মরতে হয়? ব্যাসিক ব্যাংকের ৪৫০০ কোটি টাকা ও জনতা ব্যাংকের ৫৫০৪ কোটি টাকা লুটকারীদের কেন কিছু হয়না? এসব বড় বড় খুনের আসামীরা যখন বাচাঁর অধিকার পায়, আকরামেরা কেন আইনের আশ্রয় লাভের অধিকার টুকু পাবে না?

এছাড়া মাদক বিষয়ে রাষ্ট্রীয় নীতিরও কিছু স্ববিরোধিতা লক্ষ্য করা যায়। যুবকেরা নেশার প্রথম ধাপে শুরু করে ধুমপান যা মানুষের শরীরে বড় বড় রোগ সৃষ্টি করে ও পরিবেশ দুষণ করে। সেই বিড়ি-সিগারেট কোম্পানিগুলোকে শুধু রাষ্ট্র ট্যাক্স-রেভিনিউ পাওয়ার আশায় ছাড় দিয়ে রেখেছে জনগণের ক্ষতি করার জন্য। তদুপরি, একদিকে মদপান ও ব্যবসায়ের লাইসেন্স দিয়ে রাখা হয়েছে আবার অন্য দিকে মাদক বিরোধী অভিযান চলছে- যা রাষ্ট্রীয় দ্বৈতনীতির প্রতিফলন। নাকি এসকল নেশাজাত দ্রব্য সব সরকারেরই এমপি-মন্ত্রিদের লাগে বলে বৈধ বলে ধরে নেওয়া হয়েছে। যে দেশের সংবিধানে ইসলামকে রাষ্ট্র ধর্ম  করা হয়েছে, সে দেশে মদ-ধুমপান কেমন করে বৈধ হয় তা কোনো সাধারণ মানুষেরও বোধে আসবে বলে মনে হয় না। নেশাজাত দ্রব্য ধর্মনিরপেক্ষ দৃষ্টিকোণ থেকেও অগ্রহণযোগ্য। বিগত ও সাম্প্রতিক সরকারগুলো মদের লাইসেন্স কীভাবে দিয়ে রেখেছে সেটাও জনমনে একটা বড় প্রশ্ন।

সমস্যার মূল উৎপাটন না করে শাখা-প্রশাখা ছাঁটা কোনো স্থায়ী সমাধান নয়। মাদক উৎপাদন, আমদানি ও সরবরাহ বন্ধ করলেইতো এর ব্যবসা ও সেবন ৮০% কমে যায়। এক্ষেত্রে কূটনৈতিক তৎপরতার ও প্রয়োজন ছিল কারণ, আমাদের যুবকদেরকে উদ্দেশ্য করে ভারত ও মায়ানমার সারা বাংলাদেশ সীমান্ত জুড়ে ফেন্সিডিল ও অন্যান্য নেশাজাতীয় দ্রব্য উৎপাদন ও সরবরাহ করে আসছে, যা সংবাদ মাধ্যমের মারফত আমরা বহুদিন ধরে শুনে আসছি। এছাড়া অন্যায়, দুর্নীতি ও অনিয়মগুলো যে সাংবাদিকরা বা সোশাল মিডিয়া সরকারের নজরে আনবে তার উপায়ও সীমিত। সবাই আজ রাজনৈতিক বিভাজনে বিভাজিত। সরকারের বিরোধী কিছু লিখলেই ভয়ে থাকতে হয় সাংবাদিক, বুদ্ধিজীবী ও লেখকদের- কে কখন গুম হয়ে যায়! মানবাধিকার সংস্থা অধিকারের রিপোর্ট (জুন,২০১৮) অনুযায়ী এ বছরে গত পাঁচ মাসে (জানুয়ারি-মে) ২৫ জন সাংবাদিক আক্রান্ত হয়েছেন, সাত জন লাঞ্ছিত, সাত জনকে হুমকি দেওয়া হয়েছে ও ছয় জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে বর্তমান তথ্যপ্রযুক্তি আইনে সরকারের উচ্চ পর্যায়ের ব্যক্তি ও তাদের পরিবারের বিরুদ্ধে ফেসবুকে মন্তব্য করায়।

দেশের মানুষ রাষ্ট্রীয় বিভিন্ন কার্যক্রম বা সরকারের বিভিন্ন উদ্যোগের সমালোচনা রাজপথেও করতে পারছে না, করলে গুলি; সংবাদ মাধ্যমে সমালোচনা করলে গুম; সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে করলে গ্রেফতার। মানুষ যেন আজ ত্রাসের রাজার দাশের রাজত্বে বন্দী। যুক্তরাষ্ট্রের ইলিনয় স্টেট ইউনিভার্সিটির অধ্যাপক রাষ্ট্রবিজ্ঞানী আলী রিয়াজ দেশের এ পরিস্থিতিকে ‘ভয়ের সংস্কৃতি’ বলে উল্লেখ করেছেন। তবে পৃথিবীর রাজনীতির ইতিহাস বলে কোনো সমস্যার সমাধান আইনি প্রক্রিয়ায় শুরু হলে তা আইনি প্রক্রিয়ায় শেষ হয়; রাজনৈতিক প্রক্রিয়ায় শুরু হলে রাজনৈতিক প্রক্রিয়ায় শেষ করা যায়, আর গুলির মাধ্যমে শুরু হলে তা গুলি দিয়েই শেষ হয়। যে দেশে মসির চেয়ে অসি বেশি শক্তিশালী, যে দেশে যুক্তির আলোকে নিভিয়ে দেওয়া হয় বন্দুকের গুলিতে- সে দেশে রাজনৈতিক বা সামাজিক মুক্তি আসার পথ অত্যন্ত সংকীর্ণ। তাই আমাদের প্রিয় জন্মভূমির সামনের দিনগুলি নিয়ে কোনোভাবেই সস্তি আসছেনা চিন্তাশীলদেও মনে । পাকিস্তানের  সামরিক জান্তার গুলির বিরুদ্ধে এ দেশের মানুষ যে স্পৃহা নিয়ে স্বাধীন বাংলাদেশের জন্ম দিয়েছিল, সেই দেশে বন্দুকের গুলিতে এতো মানুষের মৃত্যু- নিশ্চয়ই বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলাদেশের চিত্র হতে পারে না।

 লেখক: পিএইচডি গবেষক, রাষ্ট্রবিজ্ঞান, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়।

রাজনৈতিক ও অরাজনৈতিক আদর্শিক গোষ্ঠীগুলো প্রত্যক্ষ ও পরক্ষভাবে একটি দেশের জনগণের অভিভাবক, পথপ্রদর্শক ও সেবক। তারা জনগণকে জ্ঞানগত ও অধিকার সর্ম্পকিত বিষয়ে সচেতন করে। সমসাময়িক রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক ও সামাজিক সমস্যাগুলো জনগণের ও সরকারের সামনে তুলে আনে ও তার সমাধান প্রস্তাব করে। দেশের ভিতরে বা বাইরে মানুষ অজ্ঞতা, অশিক্ষা, হানাহানি, অন্যায় ও জুলুমের শিকার হলে তারা সেই জালিম শাসক ও জালিম রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে কথা বলে মানবতাকে উর্ধ্বে তুলে ধরতে। অন্তত ধর্মীয় বা ইসলামপন্থি দলগুলোরতো এ সকল কাজ অবশ্য কর্তব্য।
দু:খজনক ব্যাপার হলো আজও আমাদের সমাজে আয়্যামে জাহিলিয়াতের যুগের মতো নানা রকম অন্যায়-অবিচার, জুলুম-নির্যাতন, কুসংস্কার, অসামাজিক কার্যকলাপ, সুদ-ঘুষ, দুর্নীতি, শিরক, কবর-পীর-ব্যক্তি পুঁজা, মাদক সেবন ও এর ব্যবসা, যৌনতা ও ব্যাভিচারে ভরপুর। এমনকি আমরা দুর্নীতিতে বিশ্বচ্যাম্পিয়ন হয়েছি বারংবার কিন্তু এসকল সমস্যা রোধে ধর্মীয় বা আদর্শিক গোষ্ঠিগুলোর ভূমিকা অত্যন্ত গৌণ। পক্ষান্তরে, স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ে দেশে যেমন আলেম-ওলামাদের সংখ্যা যেমন বেড়েছে তেমনি আলেম-ওলামা তৈরির কারখানা মাদ্রাসা-মসজিদের সংখ্যাও বেড়েছে কয়েকগুণ। বর্তমানে দেশে মাদ্রাসা শিক্ষার্থীর সংখ্যা ১৫ লক্ষ এবং দেশের প্রতি চারজন শিক্ষার্থীর মধ্যে একজন মাদ্রাসার ছাত্র (আবুল বারকাত, ২০০৮)। ইসলামপন্থি রাজনৈতিক ও অরাজনৈতিক দলের সংখ্যাও বেড়েছে। সর্বোপরি, দেশের ৯০ ভাগ মানুষ মুসলমান। তাই অনেকেই আমাদের এই বিশাল সংখ্যক আলেমদের সমাজ সংস্কারের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তুলছেন। ডিসেম্বরে নির্বাচন কিন্তু রাজনৈতিক নেতৃত্বের ক্ষেত্রেও আলেমদের বেহাল দশা। তাদের অবস্থা খুবই দুঃখজনক। সেকুলার দলগুলো দেশের ধর্ম-প্রিয় মানুষগুলোর ধর্মীয় অনুভূতিগুলোকে কাজে লাগিয়ে বা ইসলামপন্থিদের বগল দাবা করে সিংহাসনে আরোহণ করে আসছে গত কয়েকটি নির্বাচনে। কারণ, ইসলামপন্থি দলগুলোর নেই উলে­খযোগ্য কোনো স্বতন্ত্র অবস্থান ও জনসমর্থন। অথচ এই মুসলিম অধ্যুষিত ধর্মপ্রাণ মুসলমানদের দেশে তাদেরই চালকের অবস্থানে থাকা উচিত ছিল। এবারের নির্বাচনের মাঠে সক্রিয় আছে নিবন্ধিত ও অনিবন্ধিত মোট ৭০টি ইসলামপন্থি দল ও সংগঠন। এদের ২৯টি প্রত্যক্ষ- পরোক্ষভাবে পিছু নিয়েছে সেক্যুলার ও নারী-নেতৃত্ব বিশিষ্ট্য আওয়ামী লীগের; এক সময়ের স্বৈরশাসক এরশাদের পাছ ধরেছে ৩২টি অর্থাৎ আওয়ামী-জাতীয়পার্টির জোটের পক্ষ নিয়েছে ইসলামী দলগুলোর ৯০শতাংশ। আর এই আওয়ামী জোটকে সমর্থন করছে হেফজত ইসলামের একাংশ। জাতীয়তাবাদী নারী নেতৃত্ব বিশিষ্ট বিএনপির কাছে আশ্রয় নিয়েছে ৫টি ইসলামপন্থি দল (২০ নভেম্বর ২০১৮, প্রথম আলো)।
আমাদের ইসলামপন্থি দল ও সংগঠনগুলো আজ আওয়ামী লীগ ও বিএনপি’র মতো দুটি ধর্মনিরপেক্ষ ও জাতীয়তাবাদী (যে সকল আদর্শ অনেক যুগশ্রেষ্ঠ আলেমদের মতে ইসলামের সঙ্গে সাংঘর্ষিক) দলের দুই মহিলা নেত্রীর আচলের তলে আশ্রয় নেওয়ার প্রতিযোগিতায় যেন মত্ত। বিভক্তির যেন শেষ নেই দলগুলোর মাঝে। এক হুজুর আরেক হুজুরকে দেখতে পারেনা; এক জায়গায় বসতে পারে না। এমনকি তাবলীগ জামায়াতের মতো অরাজনৈতিক দলের মধ্যেও আজ অনৈক্য-সংঘাত দানা বেধেছে। ইজতেমার মাঠেও আজ সংর্ঘষ হতে তারা নিজেদেও সংহত করতে পারল না! ১ ডিসেম্বরের হানাহানিতে প্রাণ গেছে ১ জনের ও আহত হয়েছে ২০০ জনের মতো (২ ডিসেম্বর ২০১৮, ডেইলি স্টার)। একটি ইসলামপন্থি সংগঠনের দুই অংশের মধ্যে প্রকাশ্য সংঘর্ষ ও মৃত্যুও ঘটনা সম্ভবত বাংলাদেশের ইতিহাসে এটাই প্রথম! যা সাধারণ মুসলিম, তাদের ভক্ত ও সমর্থকদের জন্য খুবই মর্মপীড়াদায়ক ও হতাশার। হামলা ও হত্যার প্রতিবাদে তাবলীগে জামায়াতের আহম্মদ শফি সাহেবের অনুসারীরা গতকয়েক দিন ধরে বায়তুল মোকাররমসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে প্রতিবাদ সমাবেশ ও মিছিল করেছে অথচ যখন লক্ষ-লক্ষ রোহিঙ্গা-ফিলিস্তনি-ইরাকি-সিরিয়ান ভাই-বোনদের উপর যখন হত্যা ও নির্যাতন চালানো হয়েছে তখন তাদের এভাবে রাস্তায় নেমে আসতে দেখা যায়নি। স¤প্রতি যখন ইউরোপিয় দেশগুলোতে পবিত্র কুরআন ও হযরত মুহম্মদ (স:) এর কার্টুন একে অবমাননা করা হয়েছে তখনও তারা এমন কোনো প্রতিবাদ সমাবেশ করেননি যা করা অনেক আলেমদের মতে একজন মুসলিমের বা একটি ইসলামপন্থি সংগঠনের অবশ্য করণীয় দায়িত্ব। অনৈক্য-অসহিষ্ণুতা এমন চুড়ান্ত সীমায় পৌঁছেছে যে কোনো জাতীয় গুরুত্বপূর্ণ বা মুসলিমদের আকিদা, স্বার্থ ও নিরাপত্তার বিষয়েও দলগুলো ঐক্যবদ্ধ কোনো বক্তব্য প্রদান বা দাবি আদায়ের সংগ্রামে এক হয়ে রাস্তায় নামতে পারে না। আজকের আলেম সমাজতো সেই আবুবকর-উমরের (সাহাবিদের) উত্তরসূরী, তিতুমীর-হাজী শরীয়তুল­াহর, মাওলান মোহম্মদ আলীদের উত্তরসূরী, তাহলে দেশে বা সমাজের সামাজিক বা রাজনৈতিক ক্ষেত্রে তাদের ভূমিকা কেন এতো প্রশ্নবিদ্ধ হয়ে উঠছে? ইসলামের শিক্ষা থেকে তারাই কি আজ দূরে সরে গেছেন?
আমাদের ভারতীয় উপমহাদেশের মুসলিমদের প্রথম রাজনৈতিক দল হলো মুসলিমলীগ যা ১৯০৬ সালে ঢাকায় প্রতিষ্ঠিত হয়। দলটি মূলত: প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল কংগ্রেসের হিন্দু নেতাদের মুসলিমদের প্রতি বৈষম্যমূলক ও সা¤প্রদায়িক আচরণের কারণে। তাই মুসলিমলীগের বেড়ে ওঠাটা ইসলামী চেতনার ভিত্তিতে মুসলিম জাতীয়তাবাদ, স্বাধিকার ও স্বশাসন প্রতিষ্ঠার আন্দোলনের মধ্য দিয়ে। দ্বিজাতি তত্তে¡র ভিত্তিতে ইসলামী প্রজাতন্ত্র পাকিস্তান সৃষ্টিই সেই ইসলামী চেতনার চুড়ান্ত প্রকাশ। অবশ্য এর আগে-পরেও এই ভারতবর্ষে ইসলামী বিভিন্ন গোষ্ঠি ও আলেম-ওলামাদের ব্রিটিশ সাম্রাজ্যবাদ ও তাদের জুলুম-নির্যাতনের বিরুদ্ধে ও সমাজ সংস্কারে বিভিন্ন আন্দোলনে নেতৃত্ব প্রদানের ভূমিকা অনস্বীকার্য; যেমন- ফরাজী আন্দোলন, শহীদ তিতুমীরের স্বাধীনতা যুদ্ধ (১৬৬০), সিপাহী বিদ্রোহ (১৮৫৮), খিলাফত আন্দোলন (১৯২২-২৫) ইত্যাদি। আমাদের ইসলামপন্থি দলগুলোইতো নবী-রাসুল-সাহাবীদের উত্তরাধিকারী কিন্তু নিজেদের মধ্যেই যখন এতো অনৈক্য-অসহিষ্ণুতা তারা জাতিকে কীভাবে পথ দেখাবে?
এ সমস্যা থেকে উত্তরণের পথ কি? এ প্রশ্ন নিয়ে আমি কথা বলেছি দেশের ১০ জন ভালো মানের আলেম ও ইমামের সাথে। তাদের প্রত্যেকের আলোচনায় একটা দু:খজনক বিষয় ফুটে উঠেছে, তা হলো- আজকের আলেম ও ইসলামপন্থি দলগুলোর নেতারা দুনিয়ামুখী স্বার্থকে বড় করে দেখছে। ইসলামী আদর্শ বা নবী মুহম্মদ (স:) এর দেখানো পথ থেকে তাদের বেশির ভাগই বিচ্যুতির পথে হাটছেন। তারা ইসলামের নীতি আনুযায়ী তাদের কর্মপন্থা ঠিক করছে না বরং তাদের স্বার্থকে মাথায় রেখে তাদের নিজেস্ব কর্মপন্থা নির্ধারণ করে সেগুলোকে কুরআন-হাদীস অনুযায়ী যায়েয করার ওয়াজ করেন। আজ যা অনেক সাধারণ মানুষের কাছেও বোধগম্য হয়ে উঠছে। ফলে মসজিদ-মাদ্রাসার সংখ্যা বাড়লেও জাতীয় জীবনে বা সমাজ পরিবর্তনে আলেম-ওলামাদের ভূমিকা আনুপাতিক হারে গৌণ হয়ে পড়েছে। ফলে তাদের দাওয়াতী কার্যক্্রমে বা আন্দোলনেও ভাটা পড়েছে। সাধারণ জনগণ ও প্রভাবশালী ব্যক্তি বা আধুনিক-সুশীল সমাজের মধ্যেও তাদের গ্রহণযোগ্যতা আজ শূণ্যের কোঠায়। কারণ, জাতীয় গুরুত্বপূর্ণ ও মুসলিম উম্মাহর দৈনন্দিন জীবনের সমস্যাগুলোর সমাধানে তারা নিয়মিত কোন কর্মসূচী বা কর্মপন্থা তুলে ধরতে পারছেন না। যেমন- সুদের হার বাড়লে বা নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের দাম বাড়লে, কোনো মুসলিমজনগোষ্ঠি (রোহিঙ্গা বা ফিলিস্তিনি) জুলুম-নির্যাতনের শিকার হলে জাতীয়পর্যায় ও আর্ন্তজাতিক পর্যায়ে কিভাবে ইসলাম এ সকল সমস্যার সমাধান দেয় তা জনগনের মধ্যে তুলে ধরার কোনো প্রবণতা আলেমদের মধ্যে দেখা যাচ্ছে না। আসছে নির্বাচনে ডানপন্থিদের-বামপন্থি-রামপন্থি সকলেরই ইশতেহার আছে কিন্তু ইসলামপন্থিরা বিভক্ত, বিপন্ন ও পরগাছার মতো আচরণ করছেন। জনগণের সামনে একটি ইসলামী ইশতেহার তুলে ধরার মতো তাদের কারোর যোগ্যতা ও মানসিকতা আছে বলে মনে হয় না। তাহলে তারা কীভাবে সমাজকে নেতৃত্ব দেবেন? কীভাবে সমাজ পরিবর্তন করবেন তা অনেকেরই বোধগম্য নয়। শুধু নামাজ-কালাম আর মিলাদ পড়িয়ে আর বছরে একবার জনগণের কাছ থেকে টাকা তুলে ওয়াজ-মাহফিল করলেই সমাজের ইসলাম প্রতিষ্ঠিত হবে না। ইসলামী সংস্কৃতি ও মূল্যবোধ গড়ে উঠবে বলে মনে হয় না। ইসলাম ধর্মের নবী হযরত মুহম্মদ (স:), তাঁর খলিফারা, সাহাবিগণ ও পরবর্তীকালে যে সকল ইসলামী নেতৃত্ব রোমান ও পারস্য সাম্রাজ্যকে পরাজিত করে বিশ্বকে প্রায় ১৪০০ বছর ইসলামী সংস্কৃতি ও শাসন দিয়ে নেতৃত্ব দিয়েছেন তাদের মধ্যে যেমন ত্যাগ-তিতিক্ষা-সহিষ্ণুতা-প্রজ্ঞা-সংগ্রামী চেতনা ছিল তার ছিটেফোঁটা এখনকার অধিকাংশ আলেমদের মধ্যে কতটুকু বিদ্যমান তা প্রশ্নসাপেক্ষ। স্মরণ করুন, একজন আলেমের মতকে অন্য একজন আলেম কীভাবে সম্মান করতে হয় তা এক সাহাবি অন্য সাহাবির মতের প্রতি সম্মান দেখিয়ে আমাদের জন্য দৃষ্টান্ত রেখে গেছেন। স্মরণ করুন- ইমাম শাফী (রহ)-এর ইমাম আবু হানিফার (রহ) মতের প্রতি শ্রদ্ধবোধের দৃষ্টান্ত। তাদেরকে অনুসরণ করলেইতো আলেমদের মাঝে ঐক্য সৃষ্টি হয়। এ অবস্থা থেকে উত্তরণের জন্য আমাদের আলেম সমাজকে ক্ষুদ্র-স্বার্থ ত্যাগ করে শরিয়ার দূরতম ফিকিহ বিষয়গুলোকে আন্তরিক পরিবেশে আলোচনা করে সমাধান করা উচিত। সাধারণ মানুষের সামনে কাঁদা ছুড়াছড়ি করে ইসলামের প্রতিপক্ষদের সন্তুষ্ট না করে আল­াহর সন্তুষ্টির জন্য আল­াহর রজ্জুকে ঐক্যবদ্ধভাবে দৃঢ়তার সঙ্গে আকড়ে ধরতে হবে। জাহিলিয়াতের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় নিজেদেরকে শিক্ষিত ও সাবলম্বী হতে হবে অর্থাৎ অন্যদের দান-অনুগ্রহ নিয়ে চলার অভ্যাস ত্যাগ না করলে শক্ত পায়ে অন্যায়কে রুখে দেওয়া যাবে না। আধুনিক জ্ঞান-বিজ্ঞান-প্রযুক্তির প্রয়োজন অনুযায়ী ব্যবহার জানা উচিত। নিয়মতান্ত্রিক পন্থায় স্বল্পকালীন ও দীর্ঘকালীন পরিকল্পনা নিয়ে মানুষের মাঝে ইসলামের শান্তির বাণী ছড়িয়ে দিতে হবে উত্তম পন্থায়। মনে রাখতে হবে বণীইসরাইলীদের ধ্বংসের প্রধান কারণ ছিল প্রথমে তাদের আলেমদের গোমরাহীতে লিপ্ত হওয়া।
লেখক: পিএইচডি গবেষক, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। ংযড়যবষফঁ৪১২@মসধরষ.পড়স